ড্রেজার বিক্রয় চুক্তিনামা ওয়ার্ড ফাইল ২০২৪ । সম্পত্তি বিক্রয় চুক্তি পত্রের নমুনা সংগ্রহ করে নিন

কোন কিছু বিক্রির ক্ষেত্রে বিক্রয় চুক্তি পত্র থাকা উচিৎ- বিক্রেতাই মূলত চুক্তিনামা তৈরি করে থাকে- পন্যের ধরন, বৈশিষ্ট্য, রেজিস্ট্রেশন নম্বর ইত্যাদি উল্লেখ থাকতে হয় – Unload Draser Sales Deed

বিক্রয় চুক্তিনামায় কি থাকে? – ক্রয় করা পণ্য, পরিষেবা বা সম্পত্তির বিবরণ । অর্থপ্রদানের পরিমাণ, তারিখ এবং পদ্ধতি। ক্ষতি, ক্ষতি, বা বিতরণ ব্যর্থতার ক্ষেত্রে প্রতিটি পক্ষের দায়বদ্ধতা। মালিকানার তথ্য, যেমন যখন মালিকানা আনুষ্ঠানিকভাবে ক্রেতার কাছে স্থানান্তরিত হয়।

চুক্তিনামা সাদা কাগজে নাকি নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে হওয়া উচিৎ? কোন ধরনের চুক্তিপত্র আপনি তা উল্লেখ করেননি। তবে সকল চুক্তিপত্রে পক্ষ গুলোর নাম ও ধাম, শর্ত, চুক্তির বিষয়বস্তু, মেয়াদ এবং সুনির্দিষ্ট নন জুডিসিয়াল স্ট্যাম্পে হওয়া উচিত। পরবর্তীতে এই চুক্তিনামা দ্বারা আইনগত ব্যবস্থা নেয়া যায় যদি নোটারি পাবলিক করা থাকে। তবে নোটারি পাবলিক না করা থাকলে সেটি দিয়ে দাবী পক্ষে স্টং অবস্থান দাঁড় করানো যায়।

ক্রয় বিক্রয় চুক্তি নামা ২০২৪ । সম্পদ ক্রয় বিক্রয় চুক্তিনামা

সরকারি অফিসে রেজিস্ট্রিকৃত কোন সম্পদ বিক্রির ক্ষেত্রে অবশ্যই হস্তান্তর দলিল থাকা জরুরী অন্যথায় উক্ত সম্পদ দিয়ে কোন ক্ষতি সাধিত হলে তার জন্য রেজিস্টার্ড মালিক দায়ী থাকবে।

Unload Draser Sale deed

Caption: Unload Draser Sales Deed Word Download

চুক্তিনামা লেখার নিয়ম ২০২৪ । চুক্তিপত্রে যে বিষয়গুলো থাকতে হবে তা জেনে নিন

  1. সম্মতি: একটি চুক্তিপত্র বৈধ হতে হলে, উভয় পক্ষেরই সম্মত হতে হবে। সম্মতি অবাধ এবং স্বেচ্ছামূলক হতে হবে।
  2. আইনসঙ্গত উদ্দেশ্য: একটি চুক্তিপত্রের একটি আইনসঙ্গত উদ্দেশ্য থাকতে হবে। অর্থাৎ, চুক্তিটি অবৈধ বা অনৈতিক হতে পারে না।
  3. আইনসঙ্গত মূল্য: একটি চুক্তিপত্রের একটি আইনসঙ্গত মূল্য থাকতে হবে। অর্থাৎ, চুক্তিটি অবৈধ বা অনৈতিক উদ্দেশ্যে করা যাবে না।
  4. সঠিক আকার: একটি চুক্তিপত্রের সঠিক আকারে থাকতে হবে। অর্থাৎ, চুক্তিটি আইন দ্বারা নির্ধারিত প্রয়োজনীয়তাগুলি পূরণ করতে হবে।
  5. সালিশ: সালিশ হল একটি অ-আদালতিক পদ্ধতি যা দ্বন্দ্ব সমাধানের জন্য ব্যবহৃত হয়। সালিশকারী উভয় পক্ষের সাথে আলোচনা করে এবং একটি সমাধানের প্রস্তাব দেয়। যদি উভয় পক্ষই প্রস্তাবটি গ্রহণ করে, তাহলে এটি একটি চুক্তিতে পরিণত হয়।
  6. আদালত: যদি চুক্তির কোন পক্ষ চুক্তিটি মেনে না চলতে চায়, তাহলে অন্য পক্ষ আদালতে যেতে পারে। আদালত চুক্তিটি বৈধ কিনা তা নির্ধারণ করবে এবং প্রয়োজনে জরিমানা বা ক্ষতিপূরণ প্রদানের আদেশ দেবে।

চুক্তিপত্র কি আইনজীবি সাথে রেখে করা ভাল?

জি। চুক্তিটি সঠিকভাবে তৈরি করা গুরুত্বপূর্ণ যাতে এটি আইনিভাবে বাধ্যতামূলক হয়। উভয় পক্ষের নাম এবং ঠিকানা চুক্তির উদ্দেশ্য চুক্তির শর্তাবলী চুক্তির মেয়াদ চুক্তির সমাপ্তির শর্তাবলী থাকতে হয়। চুক্তিটি উভয় পক্ষের দ্বারা স্বাক্ষর করা উচিত। স্বাক্ষরটি চুক্তির বৈধতা প্রমাণ করে। চুক্তিটি একটি আইনি দলিল হিসাবে রেকর্ড করা উচিত। এটি চুক্তিটিকে সংরক্ষণ করতে এবং প্রয়োজনে প্রমাণ হিসাবে ব্যবহার করতে সহায়তা করবে। চুক্তিপত্রের আইনি ব্যবস্থা সম্পর্কে আরও তথ্যের জন্য একজন আইনজীবীর সাথে পরামর্শ করা উচিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *