এতিম শিশু ভাতা ২০২৩ । জনপ্রতি বার্ষিক ২৪ হাজার টাকা ভাতা প্রদান করা হয়

বাংলাদেশ সরকার ৬ মাস অন্তর অন্তর এতিমখানার মাধ্যমে এতিম শিশুদের ১২ হাজার টাকা প্রদান করে থাকে – এতিম শিশু ভাতা ২০২৩

এতিম শিশু  ভাতা কত টাকা? – সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের নম্বর- ৪১.00.0000.03.05.003.17 (অংশ-২).৩০৫ তারিখ : ১৬ এপ্রিল ২০২৩ এর প্রেক্ষিতে ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের ১২০০১৩৪০১- “বেসরকারি এতিমখানা” এর অনুকূলে ৩২৫৪১০২- “খাদ্যদ্রব্য” খাতে বরাদ্দকৃত ২৮০.০০ (দুইশত আশি কোটি) টাকার মধ্যে অবশিষ্ট ৫টি প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে ৬৯ জন এতিম শিশুর অনুকূলে মাসিক ২,০০০/- (দুই হাজার) টাকা হারে ৬ (ছয়) মাসের জন্য (৬৯x২,০০০X৬) = ৮,২৮,০০০/- (আট লক্ষ আটাশ হাজার টাকা বরাদ্দের সরকারি মঞ্জুরি প্রদান করা হয়েছে। মঞ্জুরিকৃত অর্থ সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের ২৮ ডিসেম্বর ২০২২ তারিখের ৪১.০০.০০০০.০৪৩.০৫.০০৩.১৭(অংশ-২).২৮৮ সংখ্যক স্মারকমূলে মহাপরিচালক, সমাজসেবা অধিদপ্তর বরাবরে ন্যস্তকৃত অর্থ হতে প্রদেয় হবে।

কত বছরের শিশু ভাতা পায়? শিশু পরিবার পরিচালনায় কোন ব্যত্যয় পরিলক্ষিত হলে কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়। যাকাত, ফিতরা, দানসহ ইত্যাদি আর্থিক সহায়তা করা হয়। শিশুদের শিক্ষার গুণগতমান উন্নয়নে যে কোন সহযোগিতা হয়। শিশুর পুনর্বাসনে আর্থিক ভাবে, চাকুরী প্রদান মাধ্যমে বা তথ্য সরবরাহের মাধ্যমে সহযোগিতা করা হয়। শিশুদের প্রতি সহমর্মি আচরণ করা হয়। শিশুর পরিপূর্ণ বিকাশে যে কোন ধরণের সহযোগিতা হয়। শিশু পরিবারে ভর্তির জন্য আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর ১ মাস  হতে পাওয়া যায়। শিশু ভর্তি হওয়ার পর অন্যান্য সেবা শিশুর বয়স ১৮ বছর হওয়া পর্যন্ত পাওয়া যায়। বেসরকারি এতিমখানার ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট ২০২৩ । এতিম শিশুদের জন্য বার্ষিক ১২ হাজার টাকা ভাতা প্রদান করা হয়

কত বছর হতে শিশু ভাতা পাওয়া যায়? ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত এতিম শিশুদের প্রতিপালন করা হয়।পারিবারিক পরিবেশে স্নেহ-ভালবাসা ও আদর-যত্নের সাথে লালন পালন হয়। শিক্ষা ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ প্রদান হয়। নিবাসীদের শারীরিক, বুদ্ধিবৃত্তিক ও মানবিক উৎকর্ষতা সাধন হয়। পুনর্বাসন ও স্বনির্ভরতা অর্জনের লক্ষ্যে তাদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হয়। ৬-৯ বছর বয়সী এতিম অর্থ্যাৎ পিতৃহীন বা পিতৃমতিৃহীন দরিদ্র শিশু হতে হবে।

এতিম শিশু ভাতা ২০২৩ / সমাজসেবা অধিদপ্তরের মাধ্যমে এতিমখানায় বরাদ্দ পৌছে দেওয়া হয়

শর্তাবলী কি কি? ন্যূনতম ১০ জন এতিম নিবাসী নেই এমন কোন এতিমখানার জন্য ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বরাদ্দ দেওয়া যাবে না। সমাজসেবা অধিদফতরের নিবন্ধনকৃত নয় অথবা এতিম শিশু নেই এমন কোন এতিমখানাকে ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বরাদ্দ দেওয়া যাবে না। ১৮ বছরের উর্দ্ধে কোন এতিমকে ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বরাদ্দ দেওয়া যাবে না। যে সব এতিমখানার বিরুদ্ধে মামলা / অভিযোগ আছে তাদের মামলা / অভিযোগ নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বরাদ্দ দেয়া যাবে না। উপরিউক্ত শর্ত বা শর্তাদির সাথে অসামঞ্জস্যপূর্ণ হলে সংশ্লিষ্ট এতিমখানার জন্য গ্র্যান্ট স্থগিত রেখে সংশ্লিষ্ট উপপরিচালক, জেলা সমাজসেবা কার্যালয় সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং সমাজসেবা অধিদফতরকে অবহিত করবেন।

Caption: source of information

শিশু ভাতার ব্রেক ডাউনলোড । শিশুর খাদ্য ভাতা কত টাকা এবং পোষাক ভাতা কত টাকা? 

  1. ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বাবদ মাথাপিছু মাসিক বরাদ্দকৃত ২,০০০/- টাকা হতে খাদ্য বাবদ ১,৬০০/- টাকা, পোষাক বাবদ ২০০/- টাকা এবং ওষুধ ও অন্যান্য বাবদ ২০০/- টাকা হারে ব্যয় হবে। বরাদ্দকৃত অর্থের যথাযথ হিসাব আলাদাভাবে সংরক্ষণ করতে হবে। বরাদ্দকৃত অর্থ ব্যয়ের শর্তাবলী নিম্নরূপঃ
    ন্যূনতম ১০ জন এতিম নিবাসী নেই এমন কোন এতিমখানার জন্য ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বরাদ্দ দেওয়া যাবে না;
  2. সমাজসেবা অধিদফতরের নিবন্ধনকৃত নয় অথবা এতিম শিশু নেই এমন কোন এতিমখানাকে ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বরাদ্দ দেওয়া যাবে না;
  3. ১৮ বছরের উর্দ্ধে কোন এতিমকে ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বরাদ্দ দেওয়া যাবে না;
  4. যে সব এতিমখানার বিরুদ্ধে মামলা / অভিযোগ আছে তাদের মামলা / অভিযোগ নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত ক্যাপিটেশন গ্র্যান্ট বরাদ্দ দেয়া যাবে না;
  5. উপরিউক্ত শর্ত বা শর্তাদির সাথে অসামঞ্জস্যপূর্ণ হলে সংশ্লিষ্ট এতিমখানার জন্য গ্র্যান্ট স্থগিত রেখে সংশ্লিষ্ট উপপরিচালক, জেলা সমাজসেবা কার্যালয় সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং সমাজসেবা অধিদফতরকে অবহিত করবেন;
  6. ১ম কিস্তিতে মাথাপিছু এতিমের জন্য মাসিক ২,০০০/- (দুই হাজার) টাকা হারে ৬ (ছয়) মাসের জন্য ১২,০০০/- (বারো হাজার) টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। কোন এতিমখানার ক্ষেত্রে বরাদ্দকৃত এতিমের আসন সংখ্যা এবং মঞ্জুরিকৃত টাকার অংকের মধ্যে কোন গড়মিল পরিলক্ষিত হলে অথবা কোন অসামঞ্জস্য পরিলক্ষিত হলে সংশ্লিষ্ট উপপরিচালক সে সম্পর্কে সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং সমাজসেবা অধিদফতরকে অবিলম্বে অবহিত করবেন। List of SSP.pdf

এতিম শিশু ভাতা কাকে দেওয়া হয়?

পিতৃমাতৃহীন বা পিতৃহীন এতিম শিশুদের ভরণপোষণ, শিক্ষা, প্রশিক্ষণ এবং উপযুক্ত মর্যাদায় সমাজে পুনর্বাসনের জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় নিয়ন্ত্রণাধীন সমাজসেবা অধিদফতর সরকারি শিশু পরিবার পরিচালনা করছে। কার্যক্রম বাস্তবায়ন সংশ্লিষ্টগণ:সমাজসেবা অধিদফতরের প্রতিষ্ঠান শাখা সরকারি শিশু পরিবার পরিচালনার দায়িত্ব পালন করে। পরিচালক (প্রতিষ্ঠান) এর নেতৃত্বে অতিরিক্ত পরিচালক, উপ-পরিচালক, সহকারী পরিচালক, সমাজসেবা অফিসার সদর দপ্তর পর্যায়ে এবং মাঠপর্যায়ে তত্তাবধায়ক/উপ-তত্ত্বাবধায়ক সরকারি শিশু পরিবার পরিচালনার সাথে সংশ্লিষ্ট। জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের উপপরিচালক ও সহকারী পরিচালকগণ মাঠ পর্যায়ের প্রতিষ্ঠান তদারকি এবং মাঠ পর্যায় ও সদর দপ্তরের মধ্যে সমন্বয় সাধন করে থাকেন। মাঠ পর্যায়ে জেলা প্রশাসকের নেতৃত্বে শিশু পরিবার পরিচালনার জন্য একটি ব্যবস্থাপনা কমিটি রয়েছে। সংশ্লিষ্ট সরকারি শিশু পরিবারের তত্ত্বাবধায়ক/উপ-তত্ত্বাবধায়ক উক্ত কমিটির সদস্য-সচিব হিসেবে কাজ করেন। এছাড়া উপ-পরিচালক, সমাজসেবা অধিফতরের নেতৃত্বে সরকারি শিশু পরিবারের ভর্তি কমিটি শিশুদের ভর্তির ব্যবস্থা করে থাকে।

সরকারি শিশু পরিবার সম্পর্কিত বিভিন্ন নির্দেশনা/প্রজ্ঞাপন/পরিপত্র/ফরম/বিবিধ : ডাউনলোড

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *